জার্মানি আসার পর বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তন করা

অনেকেই প্রশ্ন করেন এক ভার্সিটি দিয়ে ভিসা নিয়ে জার্মানি এসে অন্য ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়া যাবে কি না, অথবা এক সেমিস্টার পর পরের সেমিস্টারে অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া যাবে কি না!


ওয়েল, আমি আমার কথা আসি!

আমি বার্লিন স্কুল অব ইকোনমিক্স(হাভেয়ার) দিয়ে দেশ থেকে ভিসা নিয়েছিলাম, আমার ভিসায়ও হাভেয়ারের নাম লেখা। এখানে আসার পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে পোটসডাম ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হবো বলে সিদ্ধান্ত নিলাম। কিন্তু, যেহেতু আমার ভিসায় হাভেয়ারের নাম লেখা, চিন্তায় পড়ে গেলাম কোন সমস্যায় পরে যাই কি না। হাভেয়ারের ইন্টারনেশনাল অফিসে গেলাম, কথা বললাম ভার্সিটি পরিবর্তনের ব্যাপারে। তারা জানালো, আমি কই পড়বো এটা আমার ব্যাপার। পরে আসলাম পোটসডাম ইউনিভার্সিটির ইন্টারনেশনাল অফিসে। তারা জানালো, ভার্সিটি পরিবর্তন খুবই সাধারণ ব্যাপার, আমি এটা করতে পারবো। পোটসডামেই ভর্তি হলাম, কোনো সমস্যা হয় নি। আমি আমিসহ অন্তত দশজনকে চিনি যারা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তন করেছে।


গোয়েথে ইউনিভার্সিটি ফ্রাংকফুর্ট(জার্মান সবচে’ ভাল বিশ্ববিদ্যালগুলোর একটি) বলছে, জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর এক তৃতীয়াংশ ছাত্র বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তন করে থাকে।


HTW Berlin বলছে, Changing study programmes is not problematic as long as the study programme in question can be properly completed in a reasonable period of time


মিউনিখের সিটি রেজিস্ট্রেশন অফিস বলেছে, বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তন করা সম্ভব তবে সেটা চতুর্থ সেমিস্টার শুরুর আগে হওয়া উচিৎ।


এরকম ব্রান্ডেনবুরগ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটিও বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তনের ব্যাপারে ইতিবাচক মন্তব্য করেছে।


এখন আসি বিশ্ববিদ্যালয় পরবর্তন করার নীতিমালায়ঃ

১) আপনি স্টাডি প্রোগ্রাম পরিবর্তন করতে পারবেন আপনার স্টাডি ফিল্ডের মধ্যে থেকে। যেমনঃ কেউ যদি ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভর্তি থাকে, পরবর্তিতে ইকোনোমিএক্সে এডমিশুন নেয়, তখন রেসিডেন্স পার্মিট আটোমেটিক্যালি ইনভ্যালিড হয়ে যাবে। দেশে গিয়ে নতুনভাবে ভিসা করে আসতে হবে। কেউ আইন বিভাগ থেকে ইসলামিক স্টাডীজে, অথবা, ইতিহাস থেকে পদার্থ বিজ্ঞানে ভর্তি হতে গেলে দেশে গিয়ে নতুনভাবে ভিসা নিয়ে আসতে হবে। সিমপ্লি, আপনার পরিবর্তিত সাবজেক্ট সামহাউ আপনার বর্তমান সাব্জেক্টের সাথে রিলেটেড হতে হবে।


২) সর্বোচ্চ তিন সেমিস্টারের মধ্যে পরিবর্তন করতে হবে। তবে, ক্ষেত্রবিশেষে চতুর্থ-পঞ্চম সেমিটারে গিয়েও পরিবর্তন সম্ভব, সেক্ষেত্রে আপনার বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একাডেমিক প্রোগ্রেস রিপোর্ট জমা দিতে হবে।


৩) বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সব সময়ই ফরেইন অফিসকে অবহিত করতে হবে।

পরামর্শঃ ঝামেলায় না গিয়ে আগে থেকেই বুঝেশুনে আসুন, হুদাই কেনো ঝামেলায় যাবেন। তবে কিছুদিন পড়ার পর যদি মনে করেন এটি আপনার জন্য রাইট অপশন না, আমি সাজেস্ট করবো দেরি না করে চেঞ্জ করার ব্যবস্থা করুন।


বিঃদ্রঃ ক) আমার লেখার সূত্র এখানে দেওয়া দেওয়া হলো।

https://bit.ly/3cZJXME https://bit.ly/2VNiw2X https://bit.ly/3cZgwdz https://bit.ly/3d4yLyp

খ) কেউ ভার্সিটি পরিবর্তন করতে গিয়ে যদি ঝামেলার শিকার হন, অথবা ঝামেলা হয়েছে কোনো ফরেইন অফিসে এমনটা জানেন, প্লিজ কমেন্ট বক্সে জানান।

সবার জন্য শুভ কামনা!

লিখেছেনঃ কফিল মাহমুদ

ন্যাশনাল এন্ড ইন্টারনেশনাল এডমিনিস্ট্রেশন, ইউনিভার্সিটি অব পোস্টডাম, জার্মানি।



ছবিঃ ইন্টারনেট

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।