জার্মানিতে পার্ট-টাইম জব

লিখেছেনঃ সাহেব ইউ আহমেদ



ইউরোপের সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ জার্মানি। দেশটি এখন বিদেশী শিক্ষার্থীদের কাছে অনেক জনপ্রিয়। পড়াশুনার পাশাপাশি অনেকেই বিভিন্ন রকম পার্ট টাইম জব করে এখানে। এখন দেখা যাক কোথায় খন্ড কালীন জব পাওয়া যায় আর প্রাসঙ্গিক কিছু বিষয়।


যেখানে করতে পারেন কাজ:


১. McDonald`s: খুব সহজেই ফাস্ট ফুড রেস্টুরেন্ট McDonald`s এ কাজ পাওয়া যায়। অনেক শিক্ষার্থী টুকটাক ভাষা জেনেই কাজ পেয়ে যাচ্ছে। কিচেন, সার্ভিস, ক্লিনিং টাইপের কাজ করতে পারেন। এখানে প্রতিটি শহরেই এর শাখা প্রশাখা রয়েছে। ঘন্টা প্রতি পেমেন্ট কমপক্ষে ৯.২৫ ইউরো।


২. কে এফ সি (KFC): এটাও খুব নামকরা রেস্টুরেন্ট। প্রচুর বাংলাদেশী শিক্ষার্থী কেফসি তে পার্ট টাইম জব করে।


৩. সাবওয়ে (Subway): এটা ফাস্ট ফুড চেইন রেস্টুরেন্ট। জার্মান ভাষায় ভালো দক্ষতা থাকলে কাজ পেতে পারেন সাবওয়ে তেও।


৪ . ভাপিয়ানো (Vapiano): পাস্তা-পিজ্জার জন্যে খুব বিখ্যাত রেস্টুরেন্ট এটি। কিচেন ও ক্লিনিং এর কাজে অনেক লোক দরকার হয় তাদের।


৫. MAREDO, MONGOS, Pizza Hut সহ আরো অনেক রেস্টুরেন্ট আছে যেখানে প্রতিনিয়ত নতুন লোকের দরকার হয়।


৬. জার্মানির প্রতিটি শহরেই অনেক জব এজেন্সী রয়েছে, ওদের সাথে যোগাযোগ করেও খুব সহজেই বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রিতে খন্ড কালীন জব করা যায়।


৭ . সেমিস্টার ছুটি কিংবা লম্বা ছুটির সময় জব করা যায় নামকরা গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান যেমন: মার্সিডিস বেঞ্জ (Mercedez Benz), বি এম ডব্লিউ (BMW), ভল্কস ভাগেন (Volks Wagen) ইত্যাদি। এছাড়া আমাজন (Amazon) কিংবা EBay তেও সেমিস্টার ছুটিতে কাজের সুযোগ রয়েছে।


কাজ পেতে কি ডকুমেন্টস লাগে?


জব পেতে এসব ডকুমেন্টস গুলো অবশ্যই´দরকার হবে: পাসপোর্ট, জার্মান রেসিডেন্স পার্মিট, ওয়ার্ক পার্মিট, ট্যাক্স নম্বর, সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বর, আবেদন ফর্ম, ইন্সুরেন্স পেপার।


ইনকাম কেমন হয়?


রেস্টুরেন্ট গুলোতে জব করে মাসিক ভিত্তিতে ৪৫০ থেকে ৭৫০ ইউরো আয় করা সম্ভব। সেমিস্টার ছুটিতে আরো বেশি ইউরো ইনকাম ও কঠিন বিষয় নয়।


কত ঘন্টা জব করা যায়?


এদেশে শিক্ষার্থীরা মাসে সর্বোচ্চ ৮০ ঘন্টা কাজ করতে পারে। আইনগতভাবে ট্যাক্স ক্লাস ১ থাকে।


জব করার জন্যে কি রকম ভাষাগত দক্ষতা লাগে ?


রেস্টুরেন্ট গুলুতে সহজেই জব পাওয়া যায়, তবে ভাষা একটা ভালো ফ্যাক্টর। জার্মান লেভেল কমপক্ষে এ ২ (A-2) থাকলে সহজেই রেস্টুরেন্ট ম্যানেজার কিংবা সহকর্মীদের সাথে প্রয়োজনীয় যোগাযোগ বজায় রাখা সম্ভব। আরেকটা বিষয় ভাষার লেভেল যত ভালো হবে, জব পাবার সম্ভাবনাও খুব বেশি থাকবে।


সবমিলে, জার্মানিতে পার্ট টাইম জব পাওয়া কঠিন কোনো বিষয় নয়। ব্যাপার হচ্ছে জবের সাথে পড়াশুনার ব্যালেন্স করা। অনেকেই দেখা যায় জব এড্ডিক্ট। পড়াশুনা স্থগিত রেখে শুধু পার্ট টাইম এ ব্যস্ত, এরকম বাংলাদেশী শিক্ষার্থীর সংখ্যাও প্রচুর।

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।