জার্মানিতে স্থায়ী হবার বিভিন্ন ভিসা বা পারমিটের ব্যাখ্যা


অনেকের মনেই আগ্রহ থাকে জার্মানিতে স্থায়ী হবার জন্য আসলে কোন ডকুমেন্ট পেতে হবে। কোন কোন ডকুমেন্টের নাম কি এবং কখন সে তা পেতে পারে। অনেকে আবার না বুঝে মনে করে পিআর, ব্লু কার্ড বা পাসপোর্ট এক জিনিস। প্রশ্ন করার সময়েও তারা এই ব্যাপারে গুলিয়ে ফেলে। আবার অনেকে না বুঝলে বলে, আপনার পেপার হতে কতো দেরী ? অনেকে দীর্ঘদিন জার্মানিতে থাকলেও পার্থক্য বুঝতে পারে না। তাই আমি স্থায়ী হবার কিছু লিগ্যাল পারমিটের বেসিক ব্যাখ্যা দিলাম, যাতে মন থেকে দ্বিধা কেটে যায়। Temporary Residence Permit (জার্মান নাম Aufenthaltserlaubnis) এই পারমিটের মেয়াদ একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত মেয়াদ থাকে। এই পারমিট বা ভিসা পেতে হলে অবশ্যই কোন না কোন কারন থাকতে হবে। আর প্রতিবার মেয়াদ শেষ হবার পরে তা বাড়াতে পারবে অথবা পারমিটের ক্যাটাগরি পরিবর্তন করতে পারবে অথবা চাইলে বাতিল করতে পারবে জার্মান Foreign office। Student, Job seekers, Employment, Spouse এই পারমিটের অধীনে জার্মানিতে থাকতে পারে। Permanent Residence Permit (জার্মান নাম Niederlassungserlaubnis) একে আমরা সংক্ষেপে PR বলি। এই পারমিট বা ভিসা পেলে ওই ব্যাক্তি যতো দিন খুশি জার্মানিতে থাকতে পারে। যখন খুশি জার্মানি থেকে অন্য দেশে যেতে পারে আবার যখন খুশি জার্মানিতে ঢুকতে পারে। যাদের আগে Aufenthaltserlaubnis একটা নির্দিষ্ট সময়ের পরে কিছু শর্ত পূরণ করলেই এই পারমিটের জন্য আবেদন করতে পারে। এই পারমিট পেলে একে বলা যায় সারা জীবনের ভিসা। তারমানে এই পারমিট শুরু হবার তারিখ আছে কিন্তু মেয়াদ শেষ হবার কোন তারিখ নেই। তবে এটা ব্লু কার্ড না। The EU Blue Card। এটা আসলে জার্মানির Temporary Residence Permit এর মতো। তার মানে, ব্লু কার্ড ইস্যু করার যেমন মেয়াদ আছে, তেমনি এটা শেষ হবারও মেয়াদ আছে। এর মেয়াদ বাড়ানো বা বাতিল করতে পারে জার্মান Foreign office। পার্থক্য হলো এই ব্লু কার্ড ইউরোপের বাহিরের দেশের স্কিল্ড নাগরিককে শুধু ইউরোপে জব পাবার শর্তে এই কার্ড দেয়া হয়। এই কার্ড পাওয়া ব্যাক্তিরা সাধারণত ঐ ইউরোপের দেশে পড়ালেখা না করে সরাসরি জব নিয়ে আসে। তাদেরকে আবার জবের বাৎসরিক মিনিমাম বেতনের একটা শর্ত আছে যা ব্লু কার্ড পাবার জন্য তাকে পেতেই হবে। তারপরে একটা দীর্ঘ সময়ে জব করলে সে পারমানেন্ট হবার জন্য একসময়ে শর্ত সাপেক্ষে ঐ দেশে পিআর বা পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবে। পাসপোর্ট হলো সবচাইতে শেষের ধাপ। আমরা অনেকেই না বুঝে হুটহাট করে প্রশ্ন করে ফেলি পাসপোর্ট হয়েছে কিনা। আসলে এখানে আপনি সব ধরনের পারমিট পেলেও পাসপোর্ট পাওয়া অনেক কিছুর উপরে নির্ভর করে। আর এখানে বিয়ে ছাড়া বৈধভাবে সুন্দরভাবে পাসপোর্ট পাওয়া আসলে একটা লম্বা সময়ের ব্যাপার। তাছাড়াও ভাগ্যেরও একটা ছোঁয়া থাকতে হয়। তবে উপরের পিআর বা Blue Card থাকলে এক সময় না এক সময়ে আপনার পাসপোর্ট হয়ে যাবে। শুধু সময় এবং কিছু শর্ত (নির্ভর করে ভিসার স্ট্যাটাসের উপরে) পূরণ করার উপরে এটা নির্ভর করে। পিআর পাবার পরে পাসপোর্ট পেতে দুই, তিন, পাঁচ আবার কখনো কখনো আট বছরও সময় লাগে। এটা নির্ভর করে অনেকগুলো শর্ত এবং তার আগের ভিসার স্ট্যাটাস এবং তার অতীতের রেকর্ডের উপরে। আরেকটা ব্যাপার হলো, পাসপোর্ট পেতে পিআর আগে পেতেই হবে, এমন কোন কথা নেই। অনেকেই স্টুডেন্টহিসেবে জার্মানিতে এসে সরাসরি পাসপোর্ট পেয়েছে। এটা নির্ভর করে কোন শর্তে সে পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছে তার উপরে। আবার এটা ব্যক্তি হিসেবেও নির্ভর করে।

লিখেছেন Nur Mohammad এই লেখা পড়ার পরে কোন প্রশ্ন থাকলে বা মতামত দিতে চাইলে অথবা কাউকে ট্যাগ করতে চাইলে আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ থেকে করতে পারেন

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।