বাংলাদেশ থেকে University/Uni-assist Application Payment করার পদ্ধতি


বর্তমান করোনা কালীন পরিস্থিতির জন্য অনেকেই uni-assist application payment করা নিয়ে সমস্যায় পরে গেছেন।

কিভাবে uni-assist এর ফি payment করবেন?

কোথা থেকে করবেন? কি কি documents লাগবে? অনেক অনেক প্রশ্ন!! গ্রুপ একজন ভাইয়ের পোস্টে কমেন্ট করছিলাম এই ব্যাপারে, এরপর অনেকেই দেখি কমেন্ট এবং ইনবক্স নক দিচ্ছেন, তাই ভাবলাম আমি আমার অভিজ্ঞতাটা group শেয়ার করি আপনাদের সাথে, হয়তো কারো উপকারে আসেতে পারে। অনেক গুলা মাধ্যমে payment করা যায়, যেমন : ebl virtual card, midland visa prepaid card এবং আরো কিছু bank থাকতে পারে যাদের মাধ্যমে payment করা যেতে পারে, সেগুলো আমার জানা নেই। আমি Midland bank (Dhanmondi Branch) থেকে করেছি, ব্যাংকে ঢুকতেই ডান পাশে একটা ডেস্ক আছে, ওই ডেস্কে বিজয় ভাই নামে একজন ভদ্রলোক বসেন। উনাকে বললাম university application fees payment করার জন্য কোন card অথবা অন্য কোন সিস্টেম আছে নাকি, তিনি আমাকে visa prepaid card এর ব্যাপারে বললেন, যেটি দিয়ে কোন চার্জ ছাড়া application payment করতে পারবো। পরে আমি card টি করতে চাওয়াতে, উনি আমকে visa prepaid card টি করে দিলেন সাথে সাথেই, তিনি যথেষ্ট হেল্পফুল ছিলেন। যেসব documents লেগেছিলঃ passport copy ,electricity bill copy, আমার 2 copy passport size এবং নমিনির এক copy ছবি, আয়ের উৎস( যেহেতু আমি student, তাই আমার আব্বুর Nid এবং office এর id card এর copy দিয়েছিলাম)। তারপরও যাবার আগে ওদের Help Line সব কিছু জিজ্ঞাসা করে যাইয়েন, যদি extra কোন কাগজ লাগে। আর সাথে অবশ্যই original passport নিবেন, কারন passport এর শেষের পেজ আপনার dollar endorsement করবে। আর আপানার নির্ধারিত যেই কয় টাকা ঢুকাবেন সেই কয়টাকা, আমি লাস্ট ৭ মে ঢুকিয়েছিলাম, তখন ১ ইউরো রেট ছিলো, ৮৫.৯৪ টাকা (এরপরে আবার রেইট বেড়েছে)। so ওইভাবে ইউরো রেট জেনে যাইয়েন অথবা google থেকে অনুমান করে, একটু বেশি নিয়ে যাইয়েন। পরে কার্ড নিয়ে এসে বাসায় বসে আরামছে পেমেন্ট করতে পারবেন। এই গ্রুপ থেকে অনেক হেল্প নেই, তাই আমার অভিজ্ঞতাটা শেয়ার করলাম। ভুল ত্রুটি হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। পোস্টে জে এম ওমার খাইয়াম এর কমেন্টের আলোকে আরও কিছু অতিরিক্ত তথ্য ১। একমাত্র যে কোন ব্যাংকের ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট কার্ড অথবা উপরে যেসব পেমেন্টের কথা বলা হয়েছে সেভাবে payment করা যাবে। সাউথ ইস্ট ব্যাংকেরও এরকম কার্ড আছে। DBBL এর ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট মাস্টার কার্ড আছে। যদি আপনার ওই কার্ড থেকে থাকে তাহলে আপনিও পে পারবেন। ডুয়েল কারেন্সি আছে এমন যেকোনো ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পে করা যায়। ২। ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট কার্ড হলে পার্সপোটে আগে থেকেই ইনডোর্স করা আছে। নাইলে কার্ডধারী কোন ইন্টারন্যাশনাল ট্রাঞ্জেকশন করতে পারবেন না। তবে শতকরা ৯০% ক্ষেএে ডলার এনডোর্স করা থাকে। এখন আপনি যদি পেমেন্ট করতে যান তাহলে ওই দিনের রেট অনুযায়ী ইউরো ডলারে কনভার্ট হয়ে যাবে। এতে আপনার চিন্তার কিছু নেই। ইউনিভার্সিটি ইউরো পাবে। কিন্তু আপনি বিল পাবেন ডলারে। আর যদি আপনি সরাসরি ইউরোতে পেমেন্ট করতে চান তাহলে ব্যাংকে যেয়ে আলাদাভাবে এনডোর্স করতে হবে। আমি নিজে সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেছি। বাকি যে তথ্য দিয়েছি তা আমি যা জানি তাই বলেছি। আমার জানামতে এতে ভুল নেই। তারপরও আমি মানুষ। আর মানুষ মাত্রই ভুল হয়।


লিখেছেন Sayem Ahamed Ratul এবং তার সাথে আরো তথ্য যোগ করেছে জে এম ওমার খাইয়াম

এই লেখা পড়ার পরে কোন প্রশ্ন থাকলে বা মতামত দিতে চাইলে অথবা কাউকে ট্যাগ করতে চাইলে আমাদের ফেইসবুক গ্রুপে থাকা এই পোস্টে করতে পারেন।

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।