যে সব স্কিলগুলো ঘরে বসে সবাই ফুলটাইম জব পাবার জন্য শিখে নিতে পারেন।



এখন জার্মানিতে অপ্রত্যাশিতভাবে এক বিশাল বন্ধ যাচ্ছে। এই সময়ে আমরা সবাই ঘরে মোটামুটি অবসর সময় কাটাচ্ছি। এই ফাঁকে আমরা কিছু কোর্স বা স্কিল ডেভেলপ করে নিতে পারি, যা পরে জার্মানিতে ফুলটাইম চাকরী পাবার জন্য খুব দরকার হবে। যে সব স্কিল আপনারা এখুনি দেরী না করে শেখা শুরু করতে পারেন তার বিস্তারিত দেয়া হলো


১। অনলাইনে SAP কোর্স করা: জার্মানিতে যে কেউ বিজনেস, ইঞ্জিনিয়ারিং, সামাজিক বিজ্ঞান, ইংরেজি, মানবিক যে বিষয় বা বিভাগেই পড়ুক না কেনো, ফুল টাইম জব পাবার জন্য প্রায় সময় কোম্পানিগুলো SAP জানা আছে কিনা জানতে চায়। অনেকে মনে করে, এটি বিজনেসের বা আইটির স্টুডেন্টদের জন্য। আসলে তা ভুল। এটা জার্মানিতে পড়তে আসা সকল ডিসিপ্লিনের স্টুডেন্টদের জন্য খুবই দরকারি কোর্স। আর এই কোর্সে আপনি অংক ভালো না জানলেও চলবে, তাই ভয়ের কিছু নেই। এই কোর্স সম্পূর্ণ ইংরেজিতে করা যায়। কোর্স করার জন্য অফিশিয়াল সাইট https://www.erp4students.eu/

এই সাইটের মাধ্যমে পরিপূর্ণ অনলাইনে অনেক ধরনের SAP কোর্স করা যায়। আপনারা সবাই বিগিনারদের জন্য কোর্স Enterprise Resource Planning with SAP S/4HANA (TS410) করবেন। মোট কোর্স ফিস ৪০০ € + SAP Exam Fee: 150 € এই ফিস শুধু মাত্র যারা জার্মানিতে ভ্যালিড স্টুডেন্ট তাদের জন্য। উল্লেখ্য এই ফিসের মধ্যে সকল বই, লেকচার শিট, SAP সফটওয়্যার ব্যবহার সবকিছু অন্তর্ভুক্ত।


২। ইংরেজিতে Medium ব্লগিং সাইটে লেখালেখি করা। আসলে আমরা যেভাবেই বলি না কেনো ইংরেজিতে আমাদের দক্ষতা খুবই খারাপ। আর আমরা কেউ ইংরেজিতে লেখালেখি করি না বললেই চলে (ফেইসবুকে ইংরেজিতে স্ট্যাটাস দেবার কথা বলছি না)। বর্তমানে সারা বিশ্বের সবচাইতে বড় ইংরেজিতে লেখালেখি করার ব্লগের নাম Medium। এখানে বিশ্বের প্রায় সকল নামকরা লেখক, সাংবাদিক বা ব্লগাররা লেখালেখি করে। এই ব্লগে বিশ্বের এমন কোন টপিক নেই, যা নিয়ে লেখালেখি হয় না। আপনারা যদি এখানে লেখালেখি করে, নিজের সিভিতে এই ব্লগের লিঙ্ক নিজের প্রোফাইলের সাথে যোগ করে দেন (LinkedIn অথবা XING এও যোগ করে দিতে পারেন), তাহলে কোম্পানিগুলো আপনাকে ভালো মুল্যায়ন করবে। বিশেষ করে, জার্মানির স্টার্টআপ কোম্পানিগুলো Public relation, Public communication, অথবা Media correspondend পজিশনের জন্য মাল্টি টাস্কিং ব্যাক্তি খুঁজে, যারা পড়াশুনার সাথে এমন বিভিন্ন মিডিয়াতে লেখালেখি করে। স্পেশিয়ালি যেসব বাংলাদেশী ইংরেজিতে, সামাজিক বা পলিটিক্যাল সাইন্সে এখানে পড়ছেন, তাদের সিভিতে দেখাবার জন্য এই লেখালেখির স্কিল খুবই দরকার। আসলে সারা দিন ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেয়া বা অন্যের স্ট্যাটাস পড়ার চাইতে, Medium ব্লগে লেখালেখি করলে নিজের পোর্টফলিও যেমন ভারী হবে, তেমনি ঐ ব্লগের মাধ্যমে সারা দুনিয়ার বিভিন্ন ব্লগার বা ফ্রিলেন্সারদের সাথে (প্রায় সব জার্মান ফ্রিলেন্সাররা সেখানে আছে) পরিচয় হবে। মজার ব্যাপার হলো, এখানে একাউন্ট খুলতে বা অন্য কারো লেখা পড়তে কোন টাকা পয়সা লাগে না। কিন্তু নিজে লিখতে গেলে মাসে ৫ ডলার লাগে। Medium ব্লগের লিঙ্ক https://medium.com/


৩। ঘরে বসে জার্মান ভাষা কোর্স করা। এখন এই বন্ধে সকল ভাষা কোর্স এর স্কুলগুলো বন্ধ। এই জন্য আপনারা ঘরে বসে Udemy ওয়েবসাইটে থাকা যেকোনো লেভেলের (এ১ থেকে বি২ পর্যন্ত) জার্মান ভাষা কোর্স করতে পারবেন। অন্যদের সাথে এর পার্থক্য হলো, অনলাইনে কোর্স করাতে এরা একেটা লেভেলের জন্য এরা মাত্র ১১ ইউরো করে নেয়। তারসাথে কোর্স শেষে এরা সার্টিফিকেটও দেয়, যা যেকোনো জায়গাতে জমা দেয়া যায়। যারা এতদিন পড়াশুনার ব্যস্ততায় জার্মান ভাষা শেখার সময় পাননি অথবা যারা চাকরির জন্য ভাষা কোর্সে যেতে পারেন নি, তাদের জন্য এই অবসর সময় কাজে লাগাবার এক বড় সুযোগ। ওয়েবসাইটের লিঙ্ক

https://www.udemy.com/topic/german-language/


৪। এখনি পারলে কিছু আইটি স্কিলের ডেভেলপ করা। আপনারা এই অবসর সময়ে বেসিক কিছু কম্পিউটারের কোর্স অনলাইনে করে রাখতে পারেন। এর মাঝে এখন মার্কেট ডিমান্ড অনুযায়ী আপনারা Introduction to Python, Introduction to SQL, R অথবা Tableau শিখে নিতে পারেন। আপনারা যখন শিখতে যাবেন, তখন কোনটা রেখে কোনটা শিখবেন এমন মনে হতে পারে। আবার সময় বেশি থাকলে একাধিক কোর্স করার কথাও ভাবতে পারেন। এই ক্ষেত্রে সবচাইতে ভালো হলো Datacamp নামের ওয়েবসাইট। কারন এখানে মাসে মাত্র প্রায় ১৩ ডলার দিয়ে সব কোর্স করে ফেলা যাবে। এরা প্রতি কোর্স হিসেবে টাকা না নিয়ে মাস হিসেবে চার্জ করে। এতে সুবিধা হলো, বেশি বেশি সময় দিয়ে আপনি এক বা দুই মাসে যত বেশি সম্ভব কোর্স করে ফেলতে পারবেন। আবার এরা কোর্স শেষে সার্টিফিকেট ইস্যু করে, যা আপনি জবের আবেদনের ক্ষেত্রে যেকোনো কোম্পানিতে সাবমিট করতে পারবেন। এমন কি এখানে বিনে পয়সায় কোর্স শুরু করা যায়। তাদের ওয়েবসাইটের লিঙ্ক https://www.datacamp.com/


৫। বিভিন্ন MOOC প্ল্যাটফর্ম দিয়ে বিশ্বসেরা ইউনি থেকে নিজের ইচ্ছেমত অনলাইন কোর্স করে রাখা। বিশ্বে এখন একধরনের ক্রেজ চলছে বিভিন্ন MOOC প্ল্যাটফর্ম দিয়ে অনলাইনে কোর্স করা নিয়ে। আর এসব প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিশ্বের প্রায় সকল নামকরা ইউনিগুলো অনলাইনে কোর্স অফার করে। বর্তমানে সবচাইতে পপুলার MOOC প্ল্যাটফর্মগুলো হলো EdX, Coursera, Udacity, CodeCademy ইত্যাদি। এই সব প্ল্যাটফর্মে বিজনেস রিলেটেড (বিজ্ঞান বা ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য দরকারি কমার্সের কোর্স), আইটি, বিজ্ঞান, গনিত, প্রোগ্রামিংসহ সকল কোর্স প্রায় বিনামুল্যে করা যায়। তবে কোর্স শেষে সার্টিফিকেট পেতে হলে একটা ছোট অংকের ফিস দিতে হয় (কত তা কোর্স অনুযায়ী নির্ভর করে)। MOOC প্ল্যাটফর্মগুলোর সুবিধা হলো ঘরে বসে সব কোর্সগুলো নিজে নিজে সম্পূর্ণ ইংরেজীতে করা যায়। পপুলার প্ল্যাটফর্মগুলোর লিঙ্ক

https://www.edx.org/

https://www.coursera.org/

https://www.udacity.com/

https://www.codecademy.com/


লেখার সূত্র নিজের মাথা এবং ঠ্যাকায় শেখা ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা। ছবির সূত্র উপরে লিঙ্ক দেয়া রিলেটেড ওয়েবসাইট।

লেখক Nur Mohammad

এই লেখা পড়ার পরে কোন প্রশ্ন থাকলে বা মতামত দিতে চাইলে অথবা কাউকে ট্যাগ করতে চাইলে

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।