স্টুডেন্টদের জন্য কিছু সংস্থার স্কলারশীপ


লিখেছেন Osman Goni

জার্মানিতে স্টুডেন্টদের আর্থিকভাবে সহায়তা করার জন্য সরকারি স্ক্লারশিপের পাশাপাশি বেশ কিছু বেসরকারি সংস্থা এবং ইউনিভার্সিটি অনেক ধরনের স্কলারশিপ অফার করে। বিভিন্ন মেয়াদী বৃত্তিগুলোর মধ্যে কিছু এককালীন এবং কিছু ছয় থেকে বার মাস পর্যন্ত দেয়া হয়ে থাকে, যার পরিমান প্রতিমাসে ৩০০ থেকে ১২০০ ইউরো পর্যন্ত । ধরণভেদে স্কলারশিপ গুলোর ইলিজিবিটি ক্রাইটেরিয়া ভিন্ন হলেও আর্থিক সাহায্য দরকার এমন স্টুডেন্টরাই প্রাধান্য পায়। বিশেষ করে ফরেইন স্টুডেন্টসরাই এসব স্ক্লারশিপের জন্য বেশি আবেদন করেন। পার্টটাইম জবের পাশাপাশি বিনাশ্রেমে কিছু সম্মানি পাওয়া গেলে মন্দ কি!


জার্মান সরকার কর্তৃক প্রদত্ত বৃত্তিসমূহের মধ্যে উল্লেখযোগ্যঃ

১। Konrad-Adenauer-Stiftung (KAS) Scholarships: 850 euro per month for 24 months.

২। Deutschlandstipendium: 300 euro per month for 12 installments.

৩। Heinrich Böll Scholarship: German language B2 required.


আমার Bonn-Rhein-Sieg ইউনিভার্সীটি থেকে মোট ৫টা স্কলারশিপ দেওয়া হয়। মাস্টার্স থিসিসের রেজিস্ট্রেশনের পর একটা স্কলারশিপের জন্য এপ্লাই করা যায়, অন্য একটি স্কলারশিপ শুধুমাত্র নন-জার্মানরা আবেদন করতে পারবে। এছাড়াও, বাচ্চাসহ স্টুডেন্টসদের জন্য আলাদা স্কলারশিপ রয়েছে।

আমি Studienstiftung der Hochschule Bonn-Rhein-Sieg এর জন্য এপ্লাই করেছি। প্রতিমাসে ৩০০ ইউরো করে ১২ মাস প্রদানকৃত এই বৃত্তির জন্য দ্বিতীয় সেমিস্টারের স্টুডেন্টসরা এপ্লাই করতে পারে।

এপ্লাই করার জন্য প্রযোজনীয় ডকুমেন্টস:

1.Application form

2.Motivational letter

3.Current semester certificate

4.Completed semester certifcate

5.Bachelor certificate

6.CV

7.Bank statement

8.Proof of financial situation(Income source and monthly cost)

9.Passport

10.Residence Permit

11.Professor's reference letter


রেফারেন্স লেটাররের জন্য সাবজেক্ট প্রফেসরকে মেইল করলে উনি সব রিকোয়ার্ড ডকুমেন্টস পাঠাতে বললেন। ডকুমেন্টস চেক করে আমার এক্সট্রাকারিকুলার এক্টিভিটিসের কথা জানতে চাইলেন এবং ভিডিও কনফারেন্সের জন্য সময় দিলেন।


অনলাইন ইন্টারভিউতে আমার রেসাল্ট এবং কমপ্লিটেড কোর্স সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন। পাশাপাশি দেশে থাকাকালীন ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স এবং এক্সট্রাকারিকুলার এক্টিভিটিস সিভিতে সংযোজন করে দিতে বললেন। প্রফেসর এত খুঁটিনাটি বিষয় জানতে চাওয়ায় প্রথমদিকে বরং বিরক্তই হয়েছিলাম। কিন্তু পরে বুঝলাম উনি আমার প্রোফাইল স্ট্রং করার জন্যই এমনটা করেছিলেন। প্রফেসরও চাননা উনার রেফার করা স্টুডেন্ট রিজেক্ট হোক। এখানে উনার প্রেস্টিজের বিষয়টাও যুক্ত বৈকী!!


এই লেখা পড়ার পরে কোন প্রশ্ন থাকলে বা মতামত দিতে চাইলে অথবা কাউকে ট্যাগ করতে চাইলে আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ থেকে করতে পারেন

Subscribe to Our Newsletter

© BESSiG. বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অন্য যেকোন ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়িক কার্যক্রমে ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।